জেলা

  • পেটের জ্বালায় পথ কুকুরদের খাবারে ভাগ বসালো মানুষ... গায়ে কাঁটা দেওয়া সেই ভিডিও


    TV22 ব্যুরো, ধূপগুড়িঃ করোনা ও লক ডাউন পরিস্থিতিতে গরীব মানুষ যে কী পরিমাণ কষ্টের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন তার যেন এক গায়ে কাঁটা দেওয়া বাস্তব ছবি উঠে এল ক্যামেরায়। মঙ্গলবার অ্যানিমেল লাভারস ধূপগুড়ি নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার পক্ষ থেকে ধূপগুড়ি সুপার মার্কেট চত্বরে পথ কুকুরদের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করা হয়। কিন্তু সেই খাবার বিলির সময় তাদের দিকে এগিয়ে আসেন এক ব্যক্তি এবং তিনি ওই খাবার খেতে চান৷ এতে প্রথম দিকে স্বেচ্ছাসেবকরা আপত্তি জানালেও ওই ব্যক্তি তাদের জোর করেন যে তিনি অভুক্ত অবস্থায় রয়েছেন এবং কুকুরদের জন্য রান্না করা ওই খাবারই খেতে চান। শেষ পর্যন্ত একপ্রকার বাধ্য হয়ে কুকুরের জন্য রান্না করা খাবার ওই ব্যক্তির মুখে তুলে দেন স্বেচ্ছাসেবকরা। ওই স্বেচ্ছাসেবকদের অন্যতম প্রিয়াঙ্কুশ বড়ুয়া বলেন, "কুকুরের খাবার হলেও অত্যন্ত যত্ন নিয়েই রান্না করেছিলাম আমরা। কিন্তু ওই ব্যক্তিকে আমরা প্রথমে ওই খাবার দিতে চাই নি। কিন্তু যখন তিনি বারবার জোর দিয়ে বলেন, যে তিনি না খেয়ে আছেন তখন বাধ্য হয়ে তাকে খাবার তুলে দিই।" প্রিয়াঙ্কুশের কথায়, "মানুষ কতটা কষ্টে থাকলে কুকুরের খাবার কেড়ে খায়, তা বোঝাই যায়। এই লক ডাউন মানুষকে চরম দুর্ভোগের মধ্যে ফেলেছে।" অ্যানিমেল লাভারস ধূপগুড়ির সদস্যরা  -->এর আগের লক ডাউনেও পথ কুকুরদের নিয়মিতভাবে খাবার দিয়েছেন। তাদের বক্তব্য, কুকুরদের দেওয়ার আগে সেই খাবার আমরা নিজেরাও টেস্ট করি। এতটাই পরিচ্ছন্নভাবে রান্না হয়। ফলে ওই মানুষটি খাবার চাইলে তাকে না করতে পারিনি।-->

    লিংক ক্লিক করে দেখুন সেই ভিডিও
    -->


আপনার শহরে

  • বিজেপি ক্ষমতায় এলে মুখ্যমন্ত্রী হবেন ধূপগুড়ির বিষ্ণুপদ

    TV22 ব্যুরোঃ বিজেপি ক্ষমতায় এলে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হতে পারেন ধূপগুড়ির বিজেপি প্রার্থী বিষ্ণুপদ রায়। রবিবার দুপুরে ধূপগুড়িতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে "আপনাদের প্রোজেক্টেড মুখ্যমন্ত্রী কে?" এই প্রশ্নের উত্তরে বিজেপি রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু এমন দাবি করেন। তবে কিছুদিন আগে মাদারিহাটে দাঁড়িয়ে সায়ন্তন বলেছিলেন, বিজেপি জিতলে মুখ্যমন্ত্রী হবেন মাদারিহাটের বিজেপি বিধায়ক মনোজ টিগ্গা। কিন্তু কেন এক এক জায়গায় এক এক রকম দাবি করছেন সায়ন্তন? সায়ন্তনের কথায়, আমাদের দলে একটিই পোস্ট আর বাকি সব ল্যাম্পপোস্ট, এমনটা নয়। দলের যে কোনও জয়ি প্রার্থীই মুখ্যমন্ত্রী হতে পারেন। ভোটের পর সংসদীয় কমিটি আলোচনায় বসে স্থির করবেন কে হবে মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি সহ দলের রাজ্য সভাপতি ও বিধায়করা থাকবেন৷ সায়ন্তনের আরও দাবি ২০০-র বেশি আসন নিয়ে এবার রাজ্যে ক্ষমতায় আসছে বিজেপি।
    <script data-ad-client="ca-pub-4971511487176895" async src="https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js"></script>-->